ইসলামিক গল্প ইসলামের ইতিহাস

বিস্ময়কর বালকের ঈমান ও অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষিপ্ত মুসলিমরা

==============================
বিস্ময়কর বালকের ঈমান ও অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষিপ্ত মুসলিমরা
==============================

ঘটনাটি ইয়েমেনের, এটি হযরত ঈসা ইবন্‌ মারইয়ামের (আ) পর ও মহানবীর (স) আগমনের মধ্যবর্তী সময়ের ঘটনা। এ ঘটনাটি সুরা বুরূজের ১-৮ নং আয়াতে বর্ণনা করা হয়েছে। এই ঘটনার ছিল সেই সকল খৃষ্টান, যারা আল্লাহ সুবহানাহুওয়া তা’য়ালার একত্ববাদে বিশ্বাসী ছিল এবং তারা হযরত ঈসাকে (আ) আল্লাহর রসুল বলে মানতো। অর্থাৎ এরা ছিল মুসলিম। তাদেরকে বিশাল ত্যাগের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। মুসলিম শরীফে ঘটনাটি বর্ণনা করা আছে।

পূর্বকালে এক বাদশাহ ছিল (অনেকে বলে যুনওয়াস)। তার দরবারে ছিল এক যাদুকর। সে বৃদ্ধ হয়ে গেলে বাদশাহকে বলেঃ আমি তো এখন বৃদ্ধ হয়ে পড়েছি এবং আমার মৃত্যুর সময় ঘনিয়ে এসেছে। সুতরাং আমাকে এমন একটা ছেলে দিন যাকে আমি ভালভাবে যাদুবিদ্যা শিক্ষা দিতে পারি।

তারপর সে একটি মেধাবী বালককে যাদুবিদ্যা শেখাতে শুরু করে। বালকটি তার শিক্ষাগুরুর বাড়ি যাওয়ার পথে এক সাধকের (যাজক/Priest) আস্তানার (চার্চ) পাশ দিয়ে যেতো। সুফিসাধকও ঐ আস্তানায় বসে কখনো ইবাদত করতেন, আবার কখনো জনগণের উদ্দেশ্যে ওয়াজ নসীহত করতেন। বালকটিও পথের পাশে দাড়িয়ে ইবাদতের পদ্ধতি দেখতো কখনো ওয়াজ নসীহত শুনতো। এ কারণে যাদুকরের কাছেও সে মার খেত এবং বাড়িতে বাপ-মার কাছেও মার খেত। কারণ, যাদুকরের কাছে যেমন দেরী করে পৌছতো তোমনি বাড়িতেও দেরি করে ফিরত। একদিন সে যাজকের কাছে তার এ দুরবস্থার কথা বর্ণনা করল। যাজক তাকে বলে দিলেনঃ যাদুকর দেরির কারণ জিজ্ঞাসা করলে বলবে যে, মা দেরি করে বাড়ি থেকে আসতে দিয়েছেন, কাজ ছিল। আবার মায়ের কাছে গিয়ে বলবে যে, গুরুজী দেরি করে ছুটি দিয়েছেন।

এমনিভাবে এ বালক একদিকে যাদুবিদ্যা ও অন্যদিকে ধর্মীয় বিদ্যা শিক্ষা করতে লাগল। একদিন সে দেখল যে, তার চলার পথে এ বিরাট বিস্ময়কর কিম্ভুতকিমাকার জানোয়ার পড়ে আছে। পথে লোক চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এ পাশ থেকে ওপাশে এবং ওপাশ থেকে এপাশে যাওয়া আসা করা যাচ্ছে না। সবাই উদ্বিগ্ন ও বিব্রতাবস্থায় দাড়িয়ে আছে। বালকটি মনে মনে চিন্তা করল যে, একটা বেশ সুযোগ পাওয়া গেছে। দেখাযাক, আল্লাহর সাধক, যাজকের ধর্ম অধিক পছন্দনীয় না যাদুকরের ধর্ম অধিক পছন্দনীয়। এটা চিন্তা করে সে একটা পাথর তুলে জানোয়ারের প্রতি এই বলে নিক্ষেপ করলঃ হে আল্লাহ আপনার কাছে যদি যাদুকরের ধর্মের চেয়ে যাজকের ধর্ম অধিক পছন্দনীয় হয়ে থাকে তবে এ পাথরের আঘাতে জানোয়ারটিকে মেরে ফেলুন। এতে করে জনসাধারণ এর অপকার হতে রক্ষা পাবে। পাথর নিক্ষেপের পরপরই ওর আঘাতে জানোয়ারটি মরে গেল। সুতরাং লোক চলাচল স্বাভাবিক হয়ে গেল। আল্লাহ প্রেমিক যাজক এ খবর শুনে তার শিষ্যকে বললেনঃ হে প্রিয় বৎস! তুমি আমার চেয়ে উত্তম। এবার আল্লাহ তা’লার পক্ষ থেকে তোমাকে নানাভাবে পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে। সে সব পরীক্ষার সম্মুখীন হলে আমার সম্বন্ধে কারো কাছে কিছু প্রকাশ করবে না।

অতঃপর বালকটির কাছে নানা প্রয়োজনের লোকজন আসতে শুরু করল। তার দো’য়ার বরকতে জন্মান্ধ দৃষ্টিশক্তি ফিরে পেতে লাগলো। কুষ্ঠ রোগী আরোগ্য লাভ করতে থাকলো এবং এছাড়া আরও নানা দুরারোগ্য ব্যাধি ভাল হতে লাগলো। বাদশাহর এক অন্ধমন্ত্রী এ খবর শুনে বহু মুল্যবান উপহার উপঢৌকনসহ বালকটির নিকট হজির হয়ে বললেনঃ যদি তুমি আমার দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দিতে পার তবে এসবই তোমাকে আমি দিয়ে দিব। বালকটি একথা শুনে বললঃ দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দেয়ার শক্তি আমার নেই। একমাত্র আমার প্রতিপালক আল্লাহই তা পারেন। আপনি যদি তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করেন তাহলে আমি তাঁর নিকট দোয়া করতে পারি। মন্ত্রী অঙ্গীকার করলে বালক তার জন্যে আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করল। এতে মন্ত্রী তার দৃষ্টি শক্তি ফিরিয়ে পেলেন। অতঃপর মন্ত্রী বাদশাহর দরবারে গিয়ে যথারীতি কাজ করতে শুরু করলেন। তার চক্ষু ভাল হয়ে গেছে দেখে বাদশাহ অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করলোঃ আপনার দৃষ্টিশক্তি কে দিল? মন্ত্রী উত্তরে বললেনঃ আমার প্রভু। বাদশাহ বললঃ হ্যাঁ, অর্থাৎ আমি। মন্ত্রী বললেনঃ আপনি কেন হবেন? বরং আমার এবং আপনার প্রভু লা শারীক আল্লাহ রব্বুল আ’লামীন আমার চোখের দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দিয়েছেন। তার এ কথা শুনে বাদশাহ বললঃ তাহলে আমি ছাড়াও আপনার কোন প্রভু আছে নাকি? মন্ত্রী জবাব দিলেনঃ হ্যাঁ অবশ্যই। তিনি আমার এবং আপনার উভয়েরই প্রভু ও প্রতিপালক। বাদশাহ তখন মন্ত্রীকে নানা প্রকার উৎপীড়ন এবং শাস্তি দিতে শুরু করল এবং জিজ্ঞাসা করলঃ এ শিক্ষা আপনাকে কে দিয়েছে? মন্ত্রী তখন ঐ বালকের কথা বলে ফেললেন এবং জানালেন যে, তিনি তার কাছে ইসলাম গ্রহণ করেছেন। বাদশাহ তখন বালকটিকে ডেকে পাঠিয়ে বললঃ তুমি তো দেখছি যাদুবিদ্যায় খুবই পারদর্শিতা অর্জন করেছ যে, অন্ধদের দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দিচ্ছ এবং দুরারোগ্য রোগীদের আরাগ্য দান করছো? বালক বললঃ এটা ভুল কথা। আমি কাউকেও সুস্থ করতে পারিনা, যাদুও পারেনা। সুস্থতা দান একমাত্র আল্লাহই করে থাকেন। বাদশাহ বললঃ অর্থাৎ আমি। কারণ সবকিছুই তো আমিই করে থাকি। বালক বললঃ না, না, এটা কখনই নয়। বাদশাহ বললঃ তাহলে কি তুমি আমাকে ছাড়া অন্য কাউকে প্রভু বলে স্বীকার কর? বালক উত্তরে বললঃ হ্যাঁ, আমার এবং আপনার প্রভু আল্লাহ ছাড়া কেউ নয়। বাদশাহ তখন বালককে নানা প্রকার শাস্তি দিতে শুরু করল। বালকটি অতিষ্ঠ হয়ে শেষ পর্যন্ত যাজকের নাম বলে দিল। এরপর বাদশাহ যাজককে বললঃ তুমি এ ধর্মত্যাগ কর। যাজক অস্বীকার করলেন। তখন বাদশাহ তাকে করাত দিয়ে ফেড়ে দু’টুকরা করে দিল। এরপর বাদশাহ বালকটিকে বললঃ তুমি যাজকের প্রদর্শিত ধর্মবিশ্বাস পরিত্যাগ কর। বালক অস্বীকৃতি জানাল। বাদশাহ তখন তার কয়েকজন সৈন্যকে নির্দেশ দিলঃ এ বালককে তোমরা অমুক পাহাড়ের চূড়ার উপর নিয়ে যাও। অতঃপর তাকে যাজকের প্রদর্শিত ধর্ম বিশ্বাস ছেড়ে দিতে বলো। যদি মেনে নেয় তবে তো ভাল কথা অন্যথায় তাকে সেখান হতে গড়িয়ে নিচে ফেলে দাও। সৈন্যরা বাদশাহর নির্দেশমত বালকটিকে পর্বত চূড়ায় নিয়ে গেল এবং তাকে তার ধর্ম ত্যাগ করতে বলল। বালক অস্বীকার করলে তারা তাকে ঐ পর্বত চূড়া হতে ফেলে দিতে উদ্যত হলো। তখন বালক আল্লাহ তা’য়ালার নিকট প্রার্থনা করলঃ হে আল্লাহ! যেভাবেই হোক আপনি আমাকে রক্ষা করুণ! এ প্রার্থনার সাথে সাথেই পাহাড় কেঁপে উঠল এবং ঐ সৈন্যগুলো গড়িয়ে নিচে পড়ে গেল। বালকটিকে আল্লাহ রক্ষা করলেন সে তখন আনন্দ চিত্তে ঐ যালিম বাদশাহের নিকট পৌছল। বাদশাহ বিস্মিতভাবে তাকে জিজ্ঞেস করলঃ ব্যাপার কি? আমার সৈন্যরা কোথায়? বালকটি বললঃ আমার আল্লাহ আমাকে তাদের হাত থেকে রক্ষা করেছেন এবং তাদেরকে ধ্বংস করেছেন। বাদশাহ তখন অন্য কয়েকজন সৈন্যকে ডেকে বললঃ নৌকায় বসিয়ে তাকে সমুদ্রে নিয়ে যাও, তারপর তাকে সমুদ্রগর্ভে নিক্ষেপ করে এসো। সৈন্যরা বালককে নিয়ে চলল এবং সমুদ্রের মাঝখানে নিয়ে গিয়ে নৌকা হতে ফেলে দিতে উদ্যত হল। বালক সেখানেও মহান আল্লাহর নিকট ঐ একই প্রার্থনা জানাল। সাথে সাথে সমুদ্রে ভীষণ ঢেউ উঠল এবং সমস্ত সৈন্য সমুদ্রে নিমজ্জিত হল। বালক নিরাপদে তীরে উঠল এবং বাদশাহের দরবারে হাজির হয়ে বললঃ আমার আল্লাহ আমাকে আপনার সেনাবাহিনীর কবল হতে রক্ষা করেছেন। হে বাদশাহ! আপনি যতই বুদ্ধি খাটান না কেন, আমাকে হত্যা করতে পারবেন না। তবে হ্যাঁ আমি যে পদ্ধতি বলি সেভাবে চেষ্টা করলে আমার প্রাণ বেরিয়ে যাবে। বাদশাহ বললঃ কি করতে হবে? বালক উত্তরে বললঃ সকল মানুষকে একটি ময়দানে সমবেত করুন। তারপর খেজুর কান্ডের মাথায় শূল উঠিয়ে দিন। অতঃপর আমার তূণ হতে একটি তীর বের করে আমার প্রতি সেই তীর নিক্ষেপ করার সময় বলবেনঃ “আল্লাহর নামে (এই তীর নিক্ষেপ করছি), যিনি এই বালকের প্রতিপালক।” তাহলে সেই তীর আমার দেহে বিদ্ধ হবে এবং আমি মারা যাব।

বাদশাহ তাই করল। তীর বালকের কানপট্টিতে বিদ্ধ হল এবং সেখানে হাত চাপা দিল ও শাহাদাত বরণ করল। সে শহীদ হওয়ার সাথে সমবেত জনতা ধর্মকে সত্য বলে বিশ্বাস করল। সবাই সমবেত কন্ঠে ধ্বনি তুললঃ আমরা এই বালকের প্রতিপালকের উপর ঈমান আনলাম। এ অবস্থা দেখে বাদশাহ, সভাসদবর্গ ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ল এবং বাদশাহকে বললঃ আমরা তো এই ব্যাপারটা কিছুই বুঝতে পারলাম না, সব মানুষই তার ধর্মে বিশ্বাস স্থাপন করল!! আমরা তার ধর্মের প্রসার লাভের আশংকায় তাকে হত্যা করলাম অথচ হিতে বিপরীত হল। আমরা যা আশংকা করেছিলাম তাই ঘটে গেল। সবাই মুসলমান হয়ে গেল!! এখন কি করা যায়?

বাদশাহ তখন তার অনুচরবর্গকে নির্দেশ দিলঃ সকল মহল্লায় ও রাস্তায় রাস্তায় বড় বড় খন্দক খনন কর এবং ওগুলোতে জ্বালানোকাষ্ঠ ভর্তি করে দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে দাও। যারা ধর্ম ত্যাগ করবে তাদেরকে বাদ দিয়ে এই ধর্মে বিশ্বাসী সকলকে এই অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ কর। বাদশাহের এ আদেশ যথাযথভাবে পালিত হল। মুসলমানদের সবাই অসীম ধৈর্যের পরিচয় দিলেন এবং আল্লাহর নাম নিয়ে আগুনে ঝাপিয়ে পড়তে লাগলেন। একজন নারী কোলে শিশু নিয়ে একটি খন্দকের প্রতি ঝুকে তাকিয়ে দেখছিলেন। হঠাৎ ঐ অবলা শিশুর মুখে ভাষা ফুটে উঠল। সে বললঃ মা! কি করছেন? আপনি সত্যের উপর রয়েছেন। সুতরাং ধৈর্যের সাথে নিশ্চিন্তে অগ্নিকুণ্ডে ঝাপিয়ে পড়ুন। মা তার সন্তানকে নিয়ে আগুনে ঝাপিয়ে পড়লেন!!!

এই হচ্ছে ঈমান, একজন সাচ্চা মুসলমানের ঈমান, তারা বিজয়ী হয়েছে (আখিরাতে) আর যারা (বাদশাহ ও তার সৈন্য সামন্ত) মুসলিমদের আগুনে ফেলে, আগুনে পোড়া দেখে হাসিঠাট্টা করেছে তারা হয়েছে পরাজিত (দুনিয়া ও আখিরাতে)। আমাদের ঈমানকেও তাদের [ঐ মুসলিমদের] মতই দৃঢ় করা উচিৎ। আল্লাহ আমাদের সহায় হউন। আমিন।

সূত্র

মতামত দিন