সাম্প্রতিক বিষয়

ড্যানিশ নও-মুসলিম আনা লিন্ডা নুর এর ইসলাম গ্রহনের কাহিনী

ড্যানিশ নও-মুসলিম  আনা লিন্ডা-এরধর্মান্তরিত হওয়ার কাহিনীসহ তার কিছু বক্তব্য ও চিন্তাধারা তুলে ধরব।

আনা লিন্ডা’ সপরিবারে কানাডায় আসার পর সেখান থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসী হন। তিনি কানাডায় মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। সেই থেকে এ পর্যন্ত তিনি বহু দেশ সফর করেছেন পড়াশুনা ও চাকরির কাজে।

‘আনা লিন্ডা’র বাবা মা ছিলেন আইসল্যান্ডের অধিবাসী। আনা’র জন্ম হয় ডেনমার্কে। খ্রিস্টান ক্যাথলিক গির্জায় খ্রিস্টান হিসেবে দীক্ষা দেয়া হয়েছিল তাকে। কয়েক বছর পর সপরিবারে পাড়ি জমান কানাডায়। এরপর সেখান থেকে যান নিউইয়র্কে। পড়াশুনার জন্য লিন্ডা আরো অনেক দেশে গেছেন। কিন্তু কায়রো সফর তার জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়।

কায়রো সফরের সময় এক বন্ধুর কাছ থেকে উপহার পাওয়ার সুবাদে বাইবেল বা ইঞ্জিল ও তাওরাত বা ওল্ডটেস্টাম্যান্ট পড়ার সুযোগ পান লিন্ডা। কিন্তু বাইবেলের অনেক কিছুতেই অসঙ্গতি ও গোঁজামিল দেখতে পান তিনি। এ ধর্মগ্রন্থের অনেক বক্তব্যের সঙ্গেই একমত হতে পারেননি লিন্ডা। বিশেষ করে ত্রিত্ববাদ বা তিনি খোদার অস্তিত্বের দাবি তার কাছে কখনও গ্রহণযোগ্য বলে মনে হয়নি। লিন্ডা এ প্রসঙ্গে বলেছেন,

“হযরত ঈসা (আ.)-কে আমার কাছে কখনও আল্লাহর পুত্র বলে মনে হয়নি। আর অন্য মানুষদের পাপ মোচনের জন্য এ মহাপুরুষকে ক্রুশবিদ্ধ করা হয়েছিল বলে যে দাবি করা হয় তাও আমার দৃষ্টিতে অযৌক্তিক। এইসব অযৌক্তিক বক্তব্যের কারণে আমি অন্য ধর্মগুলো নিয়ে গবেষণার সিদ্ধান্ত নেই।”

ড্যানিশ নও-মুসলিম ‘আনা লিন্ডা নুর ‘আরো বলেছেন, “বাইবেল পড়ার পর আমি ইহুদিদের ধর্মগ্রন্থ তাওরাত পড়ার উদ্যোগ নেই। বেশ কয়েকবার তালমুদ তথা ইহুদিদের প্রধান ধর্মীয় বইটি সংগ্রহের চেষ্টা করি। কিন্তু আমার সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়। কারণ, ইহুদিরা অন্যকাউকেই তাদের ধর্মের অনুসারী হতে বলে না। এরপর কিছু দিন বৌদ্ধ ধর্ম নিয়ে গবেষণা চালাই। কিন্তু খুব দ্রুত এই গবেষণা ত্যাগ করি। কারণ, দেখলাম যে তারা আল্লাহ,আসমান ও জমিনগুলো রস্রস্টার প্রতি বিশ্বাসী নয়, অথচ আমি স্রস্টার অস্তিত্বে বিশ্বাস করি।”

পাশ্চাত্যের গণমাধ্যমগুলো ইসলাম সম্পর্কে এত বেশি অপপ্রচার চালিয়ে আসছে যে সেখানকার অনেকেই এ ধর্মকে একটি নিকৃষ্ট বা নোংরা ধর্ম এবং হিংস্র ও বর্বর লোকদের ধর্ম বলে মনে করেন। কিন্তু যারাসত্য-সন্ধানী তারা অভিভূত হচ্ছেন এ ধর্মের আলোকোজ্জ্বল সৌন্দর্যে। ড্যানিশনও-মুসলিম ‘আনা লিন্ডা নুর’ হচ্ছেন এমনই এক পশ্চিমা নারী। তিনি বলেছেন,

“আমিও আমার আশপাশের অন্য অনেকের মতই ইসলাম ও মুসলমানদের প্রতি শত্রুতার মনোভাব নিয়েই বড় হয়েছি। কায়রো সফরের আগে আমি আরবদেরকেও নিকৃষ্ট শ্রেণীর মানুষ বলে মনে করতাম। এমনটি ভাবার পেছনে প্রচারণার প্রভাবও কিছুটা ছিল। যেমন, পাশ্চাত্যে যেসব ছায়াছবি দেখানো হয় সেইসব ছায়াছবিতে কোনো রকম বাছ-বিচার ছাড়াই আরবদের সবাইকে সন্ত্রাসী, অশিক্ষিত ও নারীর ব্যাপারে জালেম হিসেবে দেখানো হয়। সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে কোনো একটি দূতাবাসে চাকরির আমন্ত্রণ পেয়ে সেখানে একজন মুসলমানের সঙ্গে পরিচিত হই। তার ব্যবহার, আচার-আচরণ ও জীবনধারা বিশ্লেষণ করে ইসলামের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠি। তার সঙ্গে কয়েক ঘণ্টা আলাপের সুবাদে ইসলাম সম্পর্কে আমার অনেক ভুল ধারণা দূর হয় ও অনেক জটিল প্রশ্নের উত্তর পেতে সক্ষম হই।”

পবিত্র কুরআন মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজেল হওয়া সর্বশেষ ধর্মীয় গ্রন্থ। মহান আল্লাহর বাণীর সঙ্গে অন্য কোনো বাণীর তুলনা হয় না। তাই এ মহাগ্রন্থ বিশ্বনবী (সা.)’র সবচেয়ে বড় মোজেজা।

মহান আল্লাহ কুরআনেই এ চ্যালেঞ্জ দিয়ে রেখেছেন যে গোটা মানব জাতি ও জিন জাতির সবাই মিলেও এমন একটি মহাগ্রন্থ রচনা করা তো দূরে থাক কুরআনের একটি সুরার একটি আয়াতের সমকক্ষ আয়াতও রচনা করতে পারবে না। তাই মানুষের হৃদয়ে পবিত্র কুরআনের আবেদন এবং প্রভাব শাশ্বতও অশেষ। ড্যানিশ নও-মুসলিম ‘আনা লিন্ডা নুর’ও এর ব্যতিক্রম নন। তিনি এ মহাগ্রন্থ পড়ার পর বলেছেন,

“পবিত্র রমজান মাসে আমার বন্ধুকে বললাম আমাকে আরবী ভাষায় কুরআন পড়া শেখান। তিনি শত ব্যস্ততা সত্ত্বেও আমাকে কুরআন পড়া শেখাতে রাজি হলেন। ফলে আমি মূল আরবী ভাষায় কুরআন পড়তে সক্ষম হই এবং অনুবাদের মাধ্যমে অর্থও জানতে পারি। পড়া শেষে মনে হল কত সুন্দর, জ্ঞানগর্ভ এবং দয়া ও অনুগ্রহে ভরপুর এ মহাগ্রন্থ! এটাও দেখলাম যে প্রাচ্যবিদদের প্রচারণার বিপরীতে ইসলাম নারীকে কত উচ্চ মর্যাদা দিয়েছে ও কত বেশি তাদের প্রশংসা করেছে। প্রাচ্যবিদরা বিদ্বেষী মন নিয়ে কুরআন অনুবাদ করছেন এবং ইসলামকে এমন এক ধর্ম হিসেবে তুলে ধরছেন যে এর ইতিবাচক বা ভাল দিকগুলোর চেয়ে এর নেতিবাচক বা মন্দ দিকগুলোই বেশি! অথচ কুরআন এমন এক মহাগ্রন্থ যার মধ্যে মহাশূন্য, উত্তরাধিকার আইন, ভূতত্ত্ব, জীবনের উন্মেষ ও মানব সৃষ্টি সম্পর্কে বক্তব্য রয়েছে। অথচ এইসব বিষয়ে বিজ্ঞান সাম্প্রতিক সময়ে বক্তব্য রাখতে শুরু করেছে মাত্র। আর এটা এক মহাবিস্ময়। এটা কিভাবে সম্ভব যে একজন অশিক্ষিত ও নিরক্ষর নবী ১৪০০ বছর আগে এমন সমৃদ্ধ ও উচ্চ মানের বই তার অনুসারীদের উপহার দিতে সক্ষম হয়েছেন?”

ড্যানিশ নও-মুসলিম ‘আনা লিন্ডা’ ব্যাপক পড়াশুনা ও গবেষণার পর ইসলামের সত্যতা উপলব্ধি করতে সক্ষম হন। এ অবস্থায় তিনি প্রকাশ্যে মুসলমান হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। মুসলমান হলে তার সঙ্গে অনেক ব্যক্তির আচরণ বদলে যাবে ও অনেকেই তাকে উপহাস করবে এবং তার পরিবার ওবন্ধুদের অনেকেই তাকে ত্যাগ করবে বলে সতর্ক করে দেন আনার মুসলিম বন্ধু।

কিন্তু লিন্ডা এইসব বিষয়কে গুরুত্ব দেননি। বরং তিনি ধর্ম পরিবর্তনকে নিজের ব্যক্তিগত ব্যাপার বলে মনে করতেন। আনালিন্ডা এ প্রসঙ্গে বলেছেন, “আমি মুসলমান হতে চাওয়ার জন্য গর্ব অনুভব করতাম। কারণ, আমি অনেক বছর ধরে খ্রিস্ট, ইহুদি, হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্ম নিয়ে গবেষণা করেছি এবং ইসলামকে জানার মধ্য দিয়ে ধর্ম সম্পর্কে আমার গবেষণা শেষ হয়েছে। আমি ঈমানের এমন এক পর্যায়ে পৌঁছেছিলাম যে, এ পর্যায়ে আমি নিশ্চিত হয়েছি যেইসলাম সত্য ধর্ম। জীবনে প্রথমবারের মত যে আযান আমি কায়রোয় শুনেছিলাম তা কখনও ভুলবনা। সেই শুভ মুহূর্তে আনন্দ যেন উপচে পড়ছিল। আর আমার দুই চোখ দিয়ে ঝরছিল আনন্দের অশ্রু।”

ড্যানিশ নও-মুসলিম ‘আনা লিন্ডা নুর’ পবিত্র কুরআন সম্পর্কে বলেছেন:

“যখনই কুরআন তিলাওয়াত করি তখনই অশ্রু আর বাধা মানে না। কুরআন আমার মধ্যে যতটা প্রভাব ফেলেছে আর অন্য কোনো বইই আমার ওপর এতটা প্রভাব ফেলেনি, কান্না তো দূরের কথা। এই মহান আসমানি কিতাব যতই পড়ি ততই তার অর্থ আরো স্পষ্ট হয় আমার কাছে। এ এমন এক বই যা আমার জ্ঞান ও উপলব্ধিকে বাড়িয়ে দিয়েছে।”

হেদায়াত বা সুপথ পাওয়া মানুষের জন্য সৃষ্টিকর্তার দেয়া সবচেয়ে বড় নেয়ামত। আনা এ প্রসঙ্গে বলেছেন, “ইসলাম সম্পর্কে খারাপ ধারণা পোষণ করা সত্ত্বেও আমি শেষ পর্যন্ত মুসলমান হতে পেরেছি। তাই সবার জন্যই হেদায়াতের আশা পোষণ করা যায়। যদিও আমি অনেক বন্ধু হারিয়েছি। কিন্তু পেয়েছি অনেক বন্ধু। নতুন বন্ধুরা আমাকে পেয়ে খুব খুশি। তারা আমাকে হেদায়াত বা আলোর সমার্থক শব্দ ‘নুর’ নামেই ডাকে, যদিও আমি নিজের জন্য আনা লিন্ডা নামটিও ব্যবহার করছি। কারণ, আমার বাবা-মা আমার এ নামই রেখেছিলেন, যা আমার ব্যক্তিত্বের অংশ। নূর নামটি আমার নামের বর্ধিত অংশ। এ নাম আমার সুপথ লাভের চিহ্ন।”

source

মতামত দিন