ইসলামী শিক্ষা

‘দুনিয়াবী পড়াশোনা’কে ইবাদাতে পরিণত করা-১

‘প্রশ্নঃ আপু আমি অনার্সে ‘ল’ নিয়ে পড়েছি । আমি কর্পোরেট জবে আগ্রহী না, লিগ্যাল প্র্যাকটিসও করবো না। আমি Academia তে যেতে চাই, সেটার জন্য আমার মাস্টার্স করা জরুরী। কিন্তু আমি যেহেতু মেয়ে, সেহেতু ইনকাম করা আমার জন্য জরুরী না, তাহলে মাস্টার্স করার জন্য ফ্রি মিক্সিং এর পরিবেশে যাওয়া কি আমার জন্য উচিৎ হবে?

উত্তরঃ আমি কোনো স্কলার নই। আমি এখন যা বলবো তা সম্পূর্ণ রূপে আমার নিজস্ব মতামত, বলা যেতে পারে জীবন থেকে নেয়া অভিজ্ঞতা। তাই এটা কারো জন্য binding না।

এটা বলে আমি তাকে প্রথমেই জিজ্ঞেস করেছি তার Marital Status, more specifically whether she has babies or not.

এটা ব্যক্তিগত প্রশ্ন, সন্দেহ নাই। কিন্তু আমি করতে বাধ্য হয়েছি কারণ আমি বিশ্বাস করি যে এই সিদ্ধান্তগুলো অনেকাংশে নির্ভর করে এই প্রশ্নের উপরে- Am I surrounded by only adults or not. যদি আমার বাচ্চা থাকে তাহলে সমীকরণ এক রকম, যদি না থাকে তাহলে আরেক রকম। কারণ আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে একটা মেয়ে প্রাথমিকভাবে জবাবদিহি করবে তার পরিবারের প্রতি দায়িত্বের জন্য। একটা মেয়ে লম্বা সময়ে বাইরে থাকলে আজকের সময়ে বেশ কিছু সমস্যা হয় বাচ্চার দেখভাল করা নিয়ে। I repeat, আজকের সময়ে………যখন আমরা যৌথ ফ্যামিলিতে থাকি না বললেই চলে। আর Sexual Abuse এর ব্যাপারটা মহামারী আকার ধারণ করাতে বাইরের কাউকে বাচ্চার দেখভালের জন্য বিশ্বাস করা খুব কঠিন এখন।

আমি যখন শুনেছি যে তার বাবু নেই তখন আমি পরের প্রশ্নে গিয়েছি। তাই আমার আজকের পোস্ট মেইনলি তাদের জন্য যাদের ছোট বাবু নেই। এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ Disclaimer.

তারপর আমি তার কাছে জানতে চেয়েছি তার ভার্সিটিতে যাওয়ার ট্রান্সপোর্ট আছে নাকি ইত্যাদি।

এখন ফ্রি মিক্সিং এর পরিবেশে যাওয়ার প্রশ্ন যখন আসে, তখন প্রথমেই আমাদের কাজ হওয়া উচিৎ ফ্রি মিক্সিং বলতে আমি কি বুঝাচ্ছি সেটা বোঝা। কো এডুকেশন হারাম এটা আজকাল একটা cliche word হয়ে গেছে। কিন্তু ‘ফ্রি মিক্সিং’ এর সংজ্ঞা আমার কাছে অনেক সময়েই ক্লিয়ার না।

অবশ্যই ফ্রি মিক্সিং বলতে আমরা ছেলে ও মেয়ের একই জায়গায় অবস্থানকে বুঝাই না। তাহলে দুনিয়ার সব জায়গায় যাওয়া বন্ধ করে দিতে হবে, মাসজিদও।

ফ্রি মিক্সিং বলতে আমরা বুঝাই বিপরীত লিঙ্গের মাঝে অসঙ্গত আচরণ।’ Intermingling among cross genders’

এখানে এটা বোঝা খুব জরুরী যে আজকের ইন্টারনেটের যুগে ‘অসঙ্গত আচরণের’ ব্যাপ্তিটা একটু বিশাল বৈ কি। আপনি যদি আপনার পুরুষ সহকর্মীকে চোখ টিপ দেয়ার ইমো পাঠান অথবা মেঝেতে হাসতে হাসতে গড়িয়ে পড়ার ইমো, তাহলে সেটা নিঃসন্দেহে অসঙ্গত আচরণ। লক্ষ্য করুন, এখানে আপনি ঘরে বসেই অসঙ্গত আচরণের গুনাহ করতে পারছেন, আপনার বাইরে যেতে হচ্ছে না। তাই আজকের সময়ে অসঙ্গত আচরণের গুনাহ আপনি ঘরে থেকেই এড়াতে পারছেন না। সময়ের এই পরিবর্তনটা আমাদের বুঝতে হবে।

কো এডুকেশনের পরিবেশে থেকে কি অসঙ্গত আচরণের গুনাহ থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব? আল্লাহ ভালো জানেন, কিন্তু আমার মনে হয় সম্ভব। কিভাবে?

১। যদি আপনার শারীরিক ও মনস্তাত্ত্বিক চাহিদা হালালভাবে মেটে। লক্ষ্য করুন, আমি এখানে শুধু শারিরীক চাহিদার কথা বলিনি, ইমোশোনাল চাহিদার কথাও বলেছি। আপনার দাম্পত্য জীবনের অতৃপ্তি, হতাশা এগুলো যদি আপনি আপনার পুরুষ কলিগ কিংবা ক্লাসমেটের সাথে শেয়ার করেন, তাহলে সেটা আপনাকে এক পিচ্ছিল পথে নিয়ে যাবে, সেটা পরকীয়ার পথ।

২। আপনার ড্রেস পোশাক যদি ইসলামিক কোড মেনে চলা হয়। আমি আশা করি যে প্রোপার ইসলামিক ড্রেস কোড বলতে কী বুঝায় এটা এই পোস্টের পাঠকেরা জানেন। না জানলে অন্য কোথাও থেকে জেনে নিবেন। আমি পোস্টের ফোকাস হারাতে চাই না।

৩। আপনার Non Verbal Signals যেন কোনো wrong signal না পাঠায়। এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি বোরখা পরে ছেলেদের সাথে হা হা হিহি করা টাইপের মেয়ে হন তাহলে ছেলেরা বুঝবে যে পোশাকের মাধ্যমে যে Barrier Create হয়েছে এটা দুর্ভেদ্য কিছু না। তখন ছেলেরা আপনাকে available ভাববে।

৪। বিপরীত লিঙ্গের কারো সাথে প্রয়োজনীয় ইন্টার‍্যাকশনের আগে চিন্তা করুন যে এই কাজটার জন্য কোনো মেয়ে অল্টারনেটিভ আছে কীনা। যদি থাকে তাহলে তার কাছে যান। নিজেকে প্রশ্ন করুন যে এই Interaction টা আদতে আমার জন্য খুবই জরুরী কী না। Cost Benefit Analysis করুন।

৫। বিপরীত লিঙ্গের কারো সাথে Interaction করার সময়ে মাথায় রাখুন যে ‘প্র্যাক্টিসিং’ কেউ যদি এই কথাবার্তা দেখতো, তাহলে সে কি ভাবতো। সে কি এটাকে নিছক সাধারণ কথাবার্তা ভাবতো নাকি অন্য কিছু? যদি সম্ভব হয় যে কোনো এক পক্ষের মাহরামের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন।

৬। বিপরীত লিঙ্গের কারো কাছ থেকে অযাচিত সুবিধা নেয়া থেকে বিরত থাকুন। আপনি যদি কারো প্রতি নির্ভরশীল হয়ে যান, তাহলে সে সেটার সুযোগ নেবে এটা মাথায় রাখবেন।

৭। নিজেকে পরকীয়া থেকে Immune না ভাবা। এটা একটা ভয়ংকর পাপ। কখনো ভাববেন না অমুক আমার ছোট, তমুক চার বাচ্চার বাপ, তমুকের বউ এর সাথে সুসম্পর্ক, তমুক তো বিদেশী ইত্যাদি। মনে রাখবেন শয়তান অত্যন্ত ধৈর্য্যশীল এবং সে আমাদের প্রকাশ্য শত্রু।

(চলবে ইনশাল্লাহ)

–  Hamida Mubasshera

মতামত দিন