ইসলামিক গল্প ইসলামী শিক্ষা

হে চক্ষুষ্মান ব্যক্তিরা শিক্ষা গ্রহণ কর (ষষ্ঠ পর্ব)

হে চক্ষুষ্মান ব্যক্তিরা শিক্ষা গ্রহণ কর
(কবরের আযাব ও সাওয়াব সংক্রান্ত কতিপয় শিক্ষামূলক ঘটনা)

ষষ্ঠ পর্বঃ

 মৃতদেহ থেকে সুগন্ধি

আমার (লেখকের) মরহুম দাদা নূর এলাহীর ছোট ভাই হাফেজ আঃ হাই (রাহিঃ) অত্যন্ত আল্লাহভীরু লোক ছিল, প্রায় ৯০ বছর বয়স পর্যন্ত বেঁচে ছিলেন, জীবনভর কিতাব ও সুন্নাতের দাওয়াত ও তাবলীগের কাজ করেছেন। হালাল উপার্জনের প্রতি এত খেয়াল রাখতেন যে, একদা লাহোর থেকে স্বীয় গ্রাম মান্ডেওয়ার বার্টেন থেকে শাইখুপুরা জেলায় আসছিলেন, পকেটে পয়সা ছিলনা, ট্রেনে চেপে গন্তব্যস্থলে পৌঁছে গেলেন, স্টেশনে কারো কাছ থেকে টাকা ধার করে মান্ডেওয়ার বার্টেন থেকে শাইখুপুরার একটি টিকেট কিনে তা ওখানেই ছিঁড়ে ফেলে দিলেন, যাতে করে সরকারের পাওনা সরকার পেয়ে যায়। কুরআন তেলাওয়াতে এত আকর্ষণ ছিল যে, কোথাও যেতে হলে পায়ে হেটে যাওয়াকে যানবাহনে করে যাওয়া থেকে এজন্য পাধান্য দিতেন যে, পায়ে হেটে গেলে অধিক তেলাওয়াত করা। আল্লাহর সাথে সম্পর্কের দৃঢ় বন্ধন এত গভীর ছিল যে, তিনি হৃদ রোগী ছিলেন,

একদা তাঁর খুব ব্যথা শুরু হল,ঘরের লোকেরা কান্নাকাটি করতে লাগল, তাঁর অবস্থা যখন একটু ভাল হল তখন তিনি জিজ্ঞেস করলেন যে, তোমরা কেন কাঁদছিলে? তারা বললঃ আমরা মনে করেছিলাম যে, এই বুঝি আপনার শেষ সময়। তিনি বললেনঃ এতে চিন্তার কি আছে, আমি আমার বন্ধুর কাছে যাচ্ছিলাম, কোন শত্রুর কাছে যাচ্ছিলাম না। মরহুমের ছেলে শাইখুল হাদীস আল্লামা আব্দুস সালাম কীলানী, মদীনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করেছেন, তিনি বলেনঃ দাফনের সময় তাঁর শরীর থেকে এত সুগন্ধি বের হচ্ছিল যে, উপস্থিত সমস্ত লোকদের শরীর সুগন্ধময় হয়ে গেল। কোন কোন লোকের ধারণা ছিল যে, হয়ত কেউ কবরে সুগন্ধি ঢেলে দিয়েছে, মূলত তা ছিলনা।

কবরে আলো

সোহাদরা জেলার গুজরা নাওয়ালা শহরের প্রসিদ্ধ আলেম, মাওলানা হাফেজ মোঃঃ ইউসুফ(রাহিঃ) বলেনঃ এক রাতে আমি ঘুমিয়ে ছিলাম। প্রায় একটার সময় কিছু লোক এসে দরজায় নক করল, আমি দরজা খুললাম, তখন তারা বললঃ যে আমাদের এক কাছের আত্মীয় মারা গেছে, অসুস্থতার কারণে লাশ দীর্ঘ সময় দাফন কাফনের বাকী রাখা সম্ভব নয়। তাই এখনই আমরা জানাযার নামায পড়িয়ে দিলাম। কবর খননকারীরা দাফনের জন্য কবর প্রস্তুত করতে লাগল, হঠাৎ করে পার্শ্বের কবর খুলে গিয়ে তা থেকে আলো আসতে শুরু করল, যেন সূর্য মাথার উপর আছে, আমি পরামর্শ দিলাম যে, দ্রুত ঐ কবরের দেয়াল ঠিক করে দিন, কেননা আল্লাহর কোন নেক বান্দা আরাম করছে, তারা ঐ কবরের দেয়াল ঠিক করে দিল এবং পার্শ্বের কবরে এ মৃতকে দাফন করল।

মতামত দিন