ইসলামের ইতিহাস

জনসংখ্যা কমছে রাশিয়ায় কিন্তু মুসলিমদের হার বাড়ছে!

ইউরোপ ও উত্তর এশিয়াজুড়ে বিস্তৃত বিশ্বের বৃহত্তম দেশ রাশিয়ায়ও দ্রুতগতিতে ইসলামের বিকাশ ঘটছে। সম্প্রতি মস্কোর মাত্র একটি কেন্দ্রে ইসলাম গ্রহণকারী দশ হাজার নারী রেজিস্ট্রেশন করিয়েছেন। রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় বর্তমানে বিশ লাখের বেশি মুসলমান বাস করেন।
.
ইউরোপ ও উত্তর এশিয়াজুড়ে বিস্তৃত বিশ্বের বৃহত্তম দেশ রাশিয়ায়ও দ্রুতগতিতে ইসলামের বিকাশ ঘটছে। সম্প্রতি মস্কোর মাত্র একটি কেন্দ্রে ইসলাম গ্রহণকারী দশ হাজার নারী রেজিস্ট্রেশন করিয়েছেন। রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় বর্তমানে বিশ লাখের বেশি মুসলমান বাস করেন। এ হিসেবে এটি ইউরোপে মুসলমানদের বড় শহরগুলোর অন্যতম।
.


বিবিসির ভাষ্যমতে, এ কারণে মস্কোর চারটি মসজিদ নামাজের জন্য যথেষ্ট হচ্ছে না। তাতার মসজিদের ইমাম হাসান ফখরিতদিনোভ বিবিসিকে বলেন, ধারণক্ষমতা কম হওয়ায় বৃষ্টি-বাদল বা তুষারপাত উপেক্ষা করেই মসজিদের বাইরে মুসল্লিদের নামাজ আদায় করতে হচ্ছে। সরকারের অনুমতি না থাকায় নতুন কোনো মসজিদ প্রতিষ্ঠা করা যাচ্ছে না। তাতারিদের প্রতিষ্ঠিত ঐতিহাসিক একটি মসজিদ নতুন ভবনে স্থানান্তর করা হয়েছে। আলী চিসলাফ নামক এক পাদ্রী ইসলাম গ্রহণ করে একটি কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছেন যেখানে নওমুসলিমদের সহযোগিতা করা হয়। এখানে এসে অনেক মুসলমান আশ্রয় নিচ্ছেন।
.
মস্কোয় মুসলমানের সংখ্যা দ্রুত বাড়ার অন্যতম কারণ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত কেন্দ্রীয় এশিয়া ও ককেশাস অঞ্চলের অভিবাসীরা। দারিদ্র্য ও সহিংসতা তাদের বাধ্য করছে নতুন জীবনের সন্ধানে রাশিয়ায় পাড়ি জমাতে। উজবেকিস্তান, তাজিকিস্তান ও কিরগিজস্তানের লাখো মুসলিম তরুণের ভিড় এখন মস্কোয়। তাই রাশিয়ার জনসংখ্যা অনেক কারণে ক্রমান্বয়ে হ্রাস পেলেও মুসলিম জনসংখ্যার হার ক্রমেই বাড়ছে। ধর্মীয় অনুশাসন ও নৈতিক মূল্যবোধ মেনে চলার ফলে রাশিয়ার মুসলমানদের জীবনধারা সুশৃঙ্খল ও সুনিয়ন্ত্রিত। অনেক নৃতাত্বিক স্লাভ গোষ্ঠী সুস্থ জীবনধারার সন্ধানে ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় নিচ্ছেন। সমাজতত্ত্ববিদরা পূর্বাভাস দিয়েছেন, জনসংখ্যা বিষয়ক এ প্রবণতা যদি আগামী দিনগুলোতে অব্যাহত থাকে তাহলে ২০৫০ সালে রাশিয়ায় মুসলিম জনসংখ্যার হার ১৫% থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৫১% এ উন্নীত হবে।
.
বর্তমানে রাশিয়ান ফেডারেশনে মুসলমানদের সংখ্যা দু’কোটি।
১৯১৭ সালে বলশেভিক বিপ্লবের পর রাশিয়ায় সব ধর্ম ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়। মসজিদ, ধর্মীয় উপাসনালয় ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রগুলো হয়তো ভেঙে ফেলা হয় নয়তো অফিস বা গোডাউন হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কমিউনিস্টদের নিবর্তনমূলক শাসনের ফলে রাশিয়ায় ইসলাম ধর্ম ৭০ বছর যাবত প্রকাশ্যে বিকশিত হতে পারেনি। ১৯৯১ সালে ধর্মীয় স্বাধীনতা আইন পাশ হলে ইসলাম আবার নতুন করে যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে ১৪ কোটি ২০ লাখ রুশ জনগোষ্ঠীর মধ্যে মুসলমানের সংখ্যা হচ্ছে প্রায় ২০ লাখ।
.
সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত এই অঞ্চলের মুসলমানরাই এক সময় ইসলামের জ্ঞান-বিজ্ঞানে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন। বিভিন্ন ইসলামী শাস্ত্রের প্রবর্তক ও আবিষ্কারক মুসলিম মনীষীদের জন্ম এই অঞ্চলে। দূর আরব থেকে ইসলামের নুরানি আভা আমাদের দেশ পর্যন্ত পৌঁছতে যথেষ্ট অবদান রয়েছে এ অঞ্চলের মানুষদের। আজও রাশিয়ার মতো একটি ক্ষমতাধর রাষ্ট্রে প্রতিকূলতা সত্ত্বেও মুসলমানরা টিকে আছেন নিজেদের ঐতিহ্য নিয়ে। ইসলাম যে নিঃশেষ হয়ে যাওয়ার ধর্ম না সেটা প্রমাণ করছেন রাশিয়ার মুসলমানরা।
.
‪#‎দেশে_দেশে_ইসলাম‬
‪#‎দেশে_দেশে_ইসলাম_ও_মুসলিম‬

সূত্র

মতামত দিন

কমেন্ট