নারী প্রশ্ন ও উত্তর

ভয়েস কলে মেয়েদেরকে প্রাইভেট পড়ানোর বিধান

প্রশ্ন: ভয়েস কলে মেয়েদেরকে প্রাইভেট পড়ানো কি জায়েজ হবে?

উত্তর:

এ কথা অনিস্বীকার্য যে, নন মাহরাম প্রাপ্ত বয়স্ক যুবক-যুবতি বা নারী-পুরুষ ফোন মারফত কথা বলাও অনেক সময় উভয়ের জন্য ফেতনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এই জন্য সবচেয়ে উত্তম হল, ছেলে অন্য ছেলেকে প্রাইভেট পড়াবে, মেয়ে অন্য মেয়েকে প্রাইভেট পড়াবে। যথাসম্ভব বিপরীত লিঙ্গকে প্রাইভেট পড়ানো থেকে বিরত থাকাই অধিক নিরাপদ। তবে জরুরি প্রয়োজনে ফোন বা ভয়েস কলের মাধ্যমে প্রাইভেট পড়ানো জায়েজ আছে কতিপয় শর্ত সাপেক্ষে। যেমন:

◗ ক. এ ক্ষেত্রে অভিভাবকের জন্য জরুরি হল, শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার পূর্বে তার ব্যাপারে যথাসম্ভব খোঁজ-খবর নেয়া। তারপর যদি তাকে যোগ্য ও বিশ্বস্ত মনে হয় তাহলে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিবে। এ ক্ষেত্রে কখন কোন বিষয়ে কতক্ষণ পড়াবে এ বিষয়গুলো আগেই ঠিক করে নিবে। তারপর তাদের দু জনকে সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে ছেড়ে না দিয়ে যথাসম্ভব মনিটরিং করবে। এটি উভয়ের জন্যই কল্যাণকর।

◗ খ. কথা বলার সময় মেয়েরা কোমল কণ্ঠ পরিহার করবে এবং ফেতনা থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখবে।

আল্লাহ তাআলা নারীদেরকে প্রয়োজনে পুরুষদের সাথে কথার বলার অনুমিত দিয়েছেন। তবে এ ক্ষেত্রে কোমল কণ্ঠ পরিহার করতে নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ বলেন,

إِنِ اتَّقَيْتُنَّ فَلَا تَخْضَعْنَ بِالْقَوْلِ فَيَطْمَعَ الَّذِي فِي قَلْبِهِ مَرَضٌ وَقُلْنَ قَوْلًا مَّعْرُوفًا

“যদি তোমরা আল্লাহকে ভয় কর, তবে পরপুরুষের সাথে কোমল ও আকর্ষণীয় ভঙ্গিতে কথা বলো না। অন্যথায় কুবাসনা করবে যার অন্তরে ব্যাধি রয়েছে। আর তোমরা সঙ্গত কথাবার্তা বলবে।” (সূরা আহযাব: ৩২)

◗ গ. তারা একান্ত দরকার ছাড়া কথা বলবে না এবং একে অপরকে ভিডিও কলের মাধ্যমে দেখাদেখি করবে না বা নিজেদের ছবি লেনদেন করবে না।

◗ ঘ. প্রেমালাপ, হাসি-মজাক ও অপ্রয়োজনীয় কথাবার্তা অবশ্যই পরিত্যাজ্য।

আল্লামা আব্দুল্লাহ বিন বায রহ. বলেন,

لا حرج في تكليم المرأة للرجل من طريق الهاتف إذا كان في مصلحة شرعية أو أمر مباح كالسؤال عن العلم، أو سؤاله عن مريض أو سؤاله عن صحته، أو عن شيء مهم لا بأس بذلك.
أما إذا كانت المكالمة لمغازلة كما يقولون ولأسباب الفتنة، والدعوة إلى الفاحشة أو ما يجر إلى الفاحشة هذا لا يجوز،

“পুরুষের জন্য কোন নারীর সাথে ফোনের মাধ্যমে কথা বলা বলায় কোন অসুবিধা নাই যদি শরিয়ত সম্মত উপকারী বা বৈধ বিষয়ে হয়। যেমন: জ্ঞানের বিষয়ে প্রশ্ন করা, রোগীর খোঁজ-খবর নেয়া, স্বাস্থ্য বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা অথবা গুরুত্বপূর্ণ কোন বিষয়ে জানা। এতে কোন অসুবিধা নাই। কিন্তু যাকে বলা হয় প্রেমালাপ তেমন কিছু বিষয়ে, ফিতনার কারণ থাকলে, অশ্লীলতার দিকে আহ্বান করে বা ফিতনার দিকে টেনে নিয়ে যায় এমন বিষয়ে কথা বলা জায়েজ নাই।” [উৎস: বিন বায. রহ. এর অফিসিয়াল ওয়েব সাইট]

আল্লাহু আলাম।

– আরও পড়ুন: মেয়েদেরকে প্রাইভেট পড়ানোর বিধান

উত্তর প্রদান:

আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল

দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব

পোস্টের সূত্র

মতামত দিন