ফাতওয়া

মসজিদের বাইরে সালাত আদায়ের বিধান কি ?

*** জুমা’র সালাত/ তারাবীহ’র সালাত ও ঈদের সালাতে প্রচুর মানুষের সমাগম হওয়ার কারণে বহু মুসল্লী বাইরে সালাত আদায় করেন । আবার অনেক চালাক ভায়েরা মসজিদের ভেতরে জায়গা পাওয়া সত্ত্বেও বাইরে বসে পড়েন ! সবার শেষে আসেন এবং সবার আগেই বাসায় ফেরেন !!! কে খতীব ছিলেন ? খোৎবা কি ছিলো সেটা তাঁদের জানা নেই ! তাঁরা খোৎবা শুনতে আসেননি ! জুমা’র সালাতে না আসলে, পরিচিতদের সমালোচনার ভয়ে এসে থাকেন মাত্র ! এই প্রশংসনীয় গুণটি বাঙ্গালী/ পাকিস্তানী ও হিন্দুস্তানীদের দখলে !!!!

*** জামাতে সালাত পড়ার জন্য লাইন বাই লাইন হওয়া অপরিহার্য । কোন অবস্হাতেই লাইনচ্যুত হওয়া যাবেনা । কখনো কখনো মানুষের যাতায়াতের জন্য কিছুটা ফাঁকা রাখা যেতে পারে মাত্র ।

*** মসজিদ পূর্ণ হওয়ার পর বাইরে লাইন শুরু করবে । বাইরের লাইনগুলো সারিবদ্ধভাবে সাজানো থাকতে হবে । মাঝখানে যদি গাড়ি চলাচল করার পথ বন্ধ করা সম্ভব না হয়, গাড়ির পথটুকু ছেড়ে দিয়ে লাইন তৈরী করতে পারবে ।

*** ঘর/ বাসা যতোই নিকটস্থ হোক না কেন, মসজিদের জামাতের সংগে ঘরে বসে জামাতের অনুসরণ করা যাবেনা । ঘর থেকে ইমাম কিংবা মুক্তাদীকে দেখা গেলেও তবুও জামাত বিশুদ্ধ হবেনা ।

*** বাইরের সারিবদ্ধ লাইন ত্যাগ করত: বহুদূরে মসজিদের ইমামের পেছনে জামাতবদ্ধ হয়ে দাঁড়ালে কিংবা নিজেদের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে ইমামকে অনুসরণ করার চেষ্টা করা হলে সে সালাত বাতিল । তাঁদের জুমা’র সালাত হয়নি । বড় গুনাহগার হতে হবে ।

*** মনে রাখতে হবে যে, লাইন অনুসরণ করা অত্যাবশ্যক । মাইকের আওয়াজ অনুসরণ যথেষ্ট নয় । সেখানে বিভ্রান্ত হওয়ার আশংকা শতভাগ বহাল ।

*** বাইরে প্রজেক্টর / স্ক্রীন লাগানো হলেও তাও গ্রহণযোগ্য হবেনা যদি সারিবদ্ধ লাইন অনুসরণ করা না হয় ।

*** মক্কা / মদীনার মসজিদের বাইরের অংশে ( مساحة الحرمين ) লাইন ত্যাগ করে কয়েকজন মিলে যেখানে / সেখানে দাঁড়িয়ে ইমামের পেছনে এক্তেদা করত: সালাত আদায় নিয়ে ইমামদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে । কারো মতে বৈধ । আবার কারো মতে অবৈধ । অর্থাৎ সালাত বাতিল ! ইমাম আহমদ রহ:, ইমাম শাফেয়ী রহ:, ইমাম মালেক রহ: ও আল্লামা সা’দী রহ: এ বিষয়ে মতভেদ রয়েছে বলে উল্লেখ করেন ।

*** মক্কা / মদীনার প্রাঙ্গনের বাইরে যে সকল ভায়েরা নিজেদের দোকানের সামনে খন্ড খন্ডভাবে জামাতবদ্ধ হয়ে মাইকের আওয়াজের উপর ইমামকে অনুসরণ করে সালাত আদায় করে থাকেন, তাঁদের সালাত সর্বসম্মতিক্রমে বাতিল । এ জায়গায় সালাফ ও খালাফদের মধ্যে কোন ইখতিলাফ নেই ।

*** ফতওয়া প্রদানে শায়খ সালেহ উসাইমিন রহ:
في شرحه كتاب زاد المستقنع

সূত্র

মতামত দিন