ইসলামিক গল্প

একটি বিস্ময়কর সত্য ঘটনা

হাফিজ ইবনে হাজর আসকালানী র: বর্ননা করেছেন, মোঙ্গলদের জনৈক রাজকুমার খৃষ্ট ধর্মে দীক্ষিত হওয়ায় একদল খৃষ্টান তাকে সাধুবাদ জানানোর লক্ষ্যে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শতশত খৃষ্টান নেতৃবৃন্দ, এদের মধ্যে একজন মুসলমানদের নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি কটাক্ষ করে কটুক্তি করে। পাশে ই বাঁধা অবস্থায় ছিল একটি ট্রেনিং প্রাপ্ত শিকারী কুকুর। যখন এই বিদ্বেষী খৃষ্টান রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কে গালি দিচ্ছিল, কুকুরটি সজোরে ঘেউ ঘেউ করছিল এবং ঐ লোকটির উপর ঝাপিয়ে পড়ে কামড়ে দেয়, পাশে থাকা জনতা তাকে উদ্ধার করে।

উপস্থিত একজন আহত খৃষ্টান কে লক্ষ্য করে বলল: আপনি নবীকে গালি দেওয়ার কারণে কুকুরটি আপনার উপর চড়াও হয়েছে।এর জবাবে আহত খৃষ্টান লোকটি বলল,না না বরং কুকুরটি বেশ আত্ম-মর্যাদা সম্পন্ন, আমি তার দিকে হাত নেড়ে ইশারা করেছিলাম, আর ও ভেবেছে, আমি ওকে মারার প্রস্তুতি নিচ্ছি। অতঃপর লোকটি পুনরায় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি কটাক্ষ করে কটুক্তি করে এবং সীমা লঙ্ঘন করে। এদিকে কুকুরটি সজোরে ঘেউ ঘেউ করতে থাকে এবং হঠাৎ বাঁধন ছিঁড়ে ঐ ব্যাক্তির উপর ঝাপিয়ে পড়ে এবং ঐ লোকের বুকের উপরিভাগে কামড়াতে থাকে এবং মুহুর্তের মধ্যে ভেতরের নাড়িভুঁড়ি বের করে ফেলে,ফলে লোকটি মৃত্যু বরণ করে। এই ঘটনার পর চল্লিশ হাজার মোঘল খৃষ্টান ইসলাম ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হয় এবং ইসলাম গ্রহণ করেন।

শিক্ষা:

রহমতের নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি জ্বিন-ইনসান সবারই ভালবাসা ও সমবেদনা আছে এমনকি পশুপাখির ও কিন্তু আফসোস একদল মানুষ কুকুরের চেয়েও নিকৃষ্ট,তাই মাঝে মধ্যে তারা এমন জঘন্য অপরাধ করে থাকে।

সূত্র : আদ দুরার আল কামেনা, ৩/২০২

ইমাম যাহাবী: মু’জামুশ্ শুয়ূখ/ ৩৮৭।

সূত্র

মতামত দিন