সাম্প্রতিক বিষয়

করোনা নিয়ে কিছু কথা

মাসজিদ বন্ধ নিয়ে কথা উঠছে। অনেকেই বলছেন সব খুলে গেল, মাসজিদও খুলে যাক। অনেকে বলছেন, আমরা যারা মাসজিদে মুসল্লিদের সলাত সীমিত করার জন্য বলেছিলাম, তাদের নাকি কদিন পরে পুরোনো স্ট্যাটাস খুঁজে খুঁজে মুছে দেওয়া লাগবে।
এই পরিপ্রেক্ষিতে দুটো কথা।
আমরা আলিমদের যে ডকুমেন্টটা দিয়েছিলাম সেখানে ২ এপ্রিলে সম্ভাব্য মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১৬৯, সরকারী হিসেবমতে আজ পর্যন্ত মোট মারা গেছেন ১৬৩।

আমাদের প্রেডিকশনে ১৬৮৯৬ জনের আক্রান্ত হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু সরকারী হিসেবে ৭১০৩। নো টেস্ট নো করোনার জনপদে আসল সংখ্যাটা আল্লাহ আযযা ওয়া জাল্লা ছাড়া কেউ জানেন না।
আমাদের ডকুমেন্টে লেখা ছিল “অনেকের কাছে অবিশ্বাস্য মনে হলেও একটি ভাইরাসকে যদি ঠেকানো না হয় তবে ভাইরাসটি এই ভাবেই চক্রবৃদ্ধি হারে বিস্তার লাভ করে।”
এরপরে আমরা দ্রুত বিস্তার ঠেকানোর জন্য সোশাল বা আরো ঠিক ভাষায় বলতে গেলে ফিজিকাল ডিসট্যান্সিং এর পরামর্শ দিয়েছিলাম। খেয়াল করুন মাত্র চার জন মানুষকে সরালে কত লাভ!
বাজারে লোকজন আক্রান্ত হলে মাসজিদের লোকদেরও আক্রান্ত হতে হবে – এই লজিকের বিরুদ্ধে আগে ছিলাম, এখনও আছি। আমরা বার বার বলছি, এটা নতুন ভাইরাস, এ সম্পর্কে কেউ সব কিছু জানে না।
আমাদের হিসেবে ১৬ই জুন নাগাদ মারা যাওয়ার সংখ্যা ৬৯২,০৬০ (ছয় লক্ষ বিরানব্বই হাজার ষাট)। সরকার যে পদক্ষেপগুলো নিচ্ছে – সংখ্যাটা যেন এত বড় না হয় তার জন্যই নিচ্ছে। আমরা এমন একটা সময়ে এসে দাঁড়িয়েছি যখন আমাদের বেছে নিতে হবে না খেয়ে মানুষ মরবে না কোরোনায়। এই সিদ্ধান্ত খুব সহজ না। ফেসবুকে খুব সহজে রাজা-উজির মারা মানুষদের মধ্যে খুব কম মানুষই এ অবস্থার ভার বুঝতে পারবে। বিপর্যয় পার হয়ে যায়নি, সামনে আসছে। আল্লাহর সাহায্য ছাড়া আমাদের আদৌ কোন উপায় নেই। তবে পার্থিম জীবনের কর্তব্য হিসেবে
আমাদের বর্তমান জ্ঞানে যেটা সবচেয়ে ভালো মনে হয় সেটা করে যাব। মানুষ এবং মুসলিম হিসেবে এটাই আমাদের কর্তব্য বলে মনে করছি।

বিপদ ভালোয় ভালোয় পার হয়ে গেলে যদি আপনারা বলেন, আপনারা তো বলেছিলেন লাখ লাখ মানুষ মরবে – কই মরেনি তো; খামোকা মাসজিদ বন্ধ রাখলেন আপনারা এতদিন। বিশ্বাস করেন, আমি আপনাদের হার্ড ইমিউনিটি বোঝাতে যাব না – ভবিষ্যতে কী ঘটতে পারত আর কেন সেটা ঘটেনি – এই ঠিক-ভুলের বিচার আল্লাহ ছাড়া কেউ করতে পারবে না।

এই প্রেডিকশন ঠিক হোক সেটা আমরাও চাচ্ছি না। আমরা যা বলছি, করার চেষ্টা করছি – এই প্রেডিকশনটাকে বদলে দেবার জন্যই।

খালি যেন এমনটা না হয় যে আমরা আফসোস করলাম – ইশ ওই সিদ্ধান্ত না নিলে এতগুলো মানুষ মারা যেত না। তখন আসলে আফসোস করেও শেষ হবে না। আল্লাহ আমাদের বোঝার তাওফিক দিন, তিনি আমাদের মাফ করুন।

মতামত দিন