সিয়ামের আদব, করণীয় ও বর্জণীয় (পর্ব: ২)

গত পর্বে আমরা নিয়ত, সিয়ামের আদেশ নিষেধ ও অন্যায় অপকর্ম ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করেছিলাম। আজ ইন-শা-আল্লাহ আলোচনা করবো ইখলাস ও সুন্নাতে নববীর আনুসরণ নিয়ে। আশা করি উপকৃত হবেন।


৪. এখলাস অবলম্বন করা: কোন কাজে এখলাস অবলম্বন করার অর্থ হল কাজটা করার উদ্দেশ্য হবে একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। এ ছাড়া অন্য কোন উদ্দেশ্য থাকতে পারবে না। শুধু সিয়াম নয়, এ এখলাস ব্যতীত কোন আমল কবুল হবে না। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন:
وَمَا أُمِرُوا إِلَّا لِيَعْبُدُوا اللَّهَ مُخْلِصِينَ لَهُ الدِّينَ حُنَفَاءَ وَيُقِيمُوا الصَّلَاةَ وَيُؤْتُوا الزَّكَاةَ وَذَلِكَ دِينُ الْقَيِّمَةِ. 
তারা তো আদিষ্ট হয়েছিল আল্লাহর আনুগত্যে বিশুদ্ধচিত্ত হয়ে একনিষ্ঠভাবে তাঁর ইবাদত করতে এবং সালাত কায়েম করতে ও জাকাত দিতে, এটাই সঠিক দ্বীন। সূরা আল-বাইয়েনা: ০৫

আর সিয়াম পালনে এখালাসের বিষয়টাকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যেমন হাদিসে এসেছে:
مَنْ صَامَ رَمَضَانَ إِيمَانًا وَاحْتِسَابًا غُفِرَ لَهُ مَا تَقَدَّمَ مِنْ ذَنْبِهِ
“যে রমজান মাসে ঈমান ও ইহতিসাবের সাথে সিয়াম পালন করবে তার অতীতের গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।” (সহীহ বোখারী, সহীহ মুসলিম, আবুদাউদ ও ইবনে মাজাহ – বর্ণনায় আবু হুরাইরা রা.)
এ হাদিসে ইহতিসাব শব্দ এসেছে। এর অর্থ এখালাসের সাথে সিয়াম পালন করতে হবে। আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন ও তার কাছ থেকে প্রতিদানের আশা করার নাম হল ইহতিসাব।

৫. সুন্নতে নববীর অনুসরণ: কোন আমল-তা যতই এখালাসের সাথে সম্পাদন করা হোক না কেন, তা যদি আল্লাহর রাসূলের নির্দেশিত পদ্ধতিতে আদায় করা না হয় তবে তা কবুল করা হবে না। বরং তা আল্লাহর দরবার থেকে প্রত্যাখ্যাত হবে। যেমন বলেছেন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন:
مَنْ عَمِلَ عَمَلًا لَيْسَ عَلَيْهِ أَمْرُنَا فَهُوَ رَدٌّ
“যে এমন আমল করবে যার প্রতি আমাদের দ্বীনের নির্দেশ নেই তা প্রত্যাখ্যাত।” (সহীহ মুসলিম, আহমদ – বর্ণনায় আয়েশা রা)

যার প্রতি আমাদের দ্বীনের নির্দেশ নেই-কথাটির অর্থ হল যা আমাদের সুন্নত দ্বারা প্রমাণিত নয়। অতএব এমন সকল আমল যতই আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের নিয়তে করা হোক তা রাসূলুল্লাহ স.-এর পক্ষ থেকে অনুমোদিত না হওয়ার কারণে আল্লাহর কাছে তা গ্রহণযোগ্য নয়। অতএব কোন ধর্মীয় আমল আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়ার জন্য দুটো শর্ত। তা হলে: এক. কাজটি আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে করতে হবে। দুই. কাজটি আল্লাহর রাসূলের নির্দেশিত পদ্ধতিতে সম্পাদন করতে হবে। কাজটি যদি আল্লাহর রাসূলের নির্দেশিত পদ্ধতিতে সম্পাদন করা না হয় বা এ কাজে তার অনুমোদনের প্রমাণ না থাকে তাহলে কাজটি করে কোন সওয়াব অর্জিত হবে না। বরং গুনাহ হবে।

মূল লিখা

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন
Close
Back to top button
skybet88 skybet88 skybet88 skybet88 mix parlay skybet88 slot bonus new member skybet88 skybet88 slot gacor skybet88 skybet88